আপলোড তারিখ : 2022-11-21
কক্সবাজার বিচার বিভাগে সাড়ে ৭ কোটি টাকার জামানত আদায়
কক্সবাজার বিচার বিভাগে সাড়ে ৭ কোটি টাকার জামানত আদায় মোহাম্মদ খোরশেদ হেলালী,তাজাখবর২৪.কম,কক্সবাজার: বিগত ৮ মাসে সাড়ে ৭ কোটি টাকার জামানতের অর্থ আদায় করা হয়েছে কক্সবাজার জেলা বিচার বিভাগে। উচ্চ আদালত ও কক্সবাজার বিচার বিভাগের ৭টি আদালতে জামিন পাওয়া আসামীদের জামিনের শর্তস্বরূপ আসামীদের কাছ থেকে জামানতের এ অর্থ আদায় করে রাষ্ট্রের কোষাগারে জমা করা হয়েছে।

জেলা বিচার বিভাগীয় সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে কক্সবাজারের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল এ তথ্য প্রকাশ করেন। সোমবার,২১ নভেম্বর জেলা জজ আদালতের সম্মেলন কক্ষে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলনে সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আরো জানান, চলতি বছরের ৮ মার্চ থেকে গত ৮ নভেম্বর পর্যন্ত এ বিপুল পরিমাণ অর্থ আদায় করা হয়েছে। জামিনপ্রাপ্ত আসামীরা জামিন নিয়ে যাতে পলাতক না হয়, সেজন্য সম্প্রতি কক্সবাজারের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আইনের বিধান মতে আসামীদের কাছ থেকে জামানতের অর্থ নেওয়ার এ যুগান্তকারী বিধানটি চালু করেন। উল্লেখিত সময়ে জেলা ও দায়রা জজ আদালতসহ ৭টি আদালতে আসামীদের কাছ থেকে এ জামানতের অর্থ আদায় করা হয়েছে।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের নাজির বেদারুল আলম জানান, আদায়কৃত জামানতের অর্থের মধ্যে এই বিধানে জামিন প্রাপ্ত আসামী আদালতে জামিননামা দাখিল করার সাথে জামানতের অর্থ সরকারী কোষাগারে জমা করে জমা করার চালানের কপি জামিননামার সাথে আদালতে দাখিল করতে হয়। জামিনপ্রাপ্ত আসামীদের অধিকাংশই হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে হাইকোর্টের নির্দেশনা মতে কক্সবাজারের বিভিন্ন আদালতে জামিননামা সম্পদনের সময় প্রচুর পরিমাণে জামানতের অর্থ আদায় করা হয়েছে।

সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আরো বলেন, মামলা গুলোর মধ্যে বেশীরভাগই মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলা। জামিনপ্রাপ্ত আসামী জামিন পাওয়ার পর পলাতক হলে জামানত বাবদ রাষ্ট্রের কোষাগারে জমাকৃত অর্থ রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা হবে। মামলা নিষ্পত্তির পর আসামী খালাস পেলে জামানতের অর্থ সংশ্লিষ্ট আসামীকে ফেরত প্রদান করা হবে।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম আসামীকে জামিন প্রদানের অন্যান্য শর্তের সাথে জামানত নেওয়ার বিধানটি একটি সময়োপযোগী পদক্ষেপ বলে জানান। এ বিধানের ফলে বিচারাধীন মামলার জামিনপ্রাপ্ত আসামীরা পলাতক হওয়ার আশংকা অনেকটা হ্রাস পেয়েছে। এতে একদিকে, রাষ্ট্রের কোষাগার সমৃদ্ধ হচ্ছে, অন্যদিকে, মামলা নিষ্পত্তিতে আদালতকে অহেতুক বিড়ম্বনা পোহাতে হবেনা, অপেক্ষাকৃত কম সময়ে মামলা নিষ্পত্তি করা যাবে বলে জানান-পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম।

এদিকে আসামীদের জামিনের শর্তস্বরূপ আসামীদের কাছ থেকে জামানতের অর্থ নেওয়ার বিধানটি মডেল হিসাবে নিয়েছে দেশের বিভিন্ন আদালত। কক্সবাজারের আদালতকে অনুসরণ করে দেশের বিভিন্ন আদালতেও এখন নগদ জামানতের অর্থ রাষ্ট্রের কোষাগারে জমা করার শর্ত দিয়ে জামিন মঞ্জুর করা হচ্ছে।


তাজাখবর২৪.কম: ঢাকা সোমবার, ২১ নভেম্বর ২০২২ ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯,২৫ রবিউসসানি ১৪৪৪


এই বিভাগের আরো সংবাদ

advertisement

 
                              
                             প্রধান উপদেষ্টা: ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট
                                             সম্পাদক: কায়সার হাসান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আর কে ফারুকী নজরুল, সহকারি সম্পাদক: জহির হাসান,নগর সম্পাদক: তাজুল ইসলাম।
ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: মডার্ণ ম্যানশন (১৫ তলা) ৫৩ মতিঝিল বা/এ, ঢাকা-১০০০।
এই ঠিকানা থেকে সম্পাদক কায়সার হাসান কর্তৃক প্রকাশিত।
কপিরাইটর্স ২০১৩: taazakhobor24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
ফোন: ০৮৮-০২-৫৭১৬০৭২০, মোবাইল: ০১৮১৮১২০৯০৮, ০১৯১০৭৭৪৫৫৯
ইমু: ০১৯১০৭৭৪৫৫৯ ই-মেইল: [email protected] , [email protected]
facebook: taaza khobor, You tube:Taaza khobor Tv

মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, 2০২3