আপলোড তারিখ : 2021-11-17
সার ডিজেল ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি: বোরো আবাদ নিয়ে শঙ্কিত গোবিন্দগঞ্জের কৃষকরা
সার ডিজেল ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি: গোবিন্দগঞ্জে বোরো আবাদ নিয়ে শঙ্কিত কৃষকরাতাজুল ইসলাম প্রধান.তাজাখবর২৪.কম,গোবিন্দগঞ্জ: চার দফায় জ্বালানী তেল,বিদ্যুৎ ও সারসহ কৃষি উপকরনের দাম বৃদ্ধির ফলে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় আসন্ন মৌসুমে বোরো আবাদ নিয়ে শঙ্কিত কৃষকরা। লোকসানের ভয়ে জমি তৈরি করেও বোরোচাষ কমিয়ে দিয়ে অন্যান্য ফসলের দিকে ঝুকে পড়েছেন।এতে এ উপজেলায় বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসার অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, গত বোরো মৌসুমে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ডিজেল চালিত সেচযন্ত্র ছিল সাড়ে ৭ হাজারটি এবং বিদ্যুৎ চালিত সেচযন্ত্র ছিল ১৭ হাজার টি। গত কয়েক বছরে ডিজেল,বিদ্যুৎ ও সারসহ কৃষি উপকরনের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পাওয়ায় সেচ যন্ত্রের অনেক মালিকই লোকসানের ভয়ে বোরো চাষিদের সেচ সুবিধা দিতে দ্বিধা-দ্বন্দে পড়েছেন।এতে আগ্রহী বোরো চাষিরাও চরম বিপাকে পড়েছেন।
উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রান্তিক কৃষক অনেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে,বোরো চাষে ব্যবহৃত সার ও ডিজেল সহ কৃষি উপকরনের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে যাহা কৃষকের নাগালের বাইরে।
কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্ত সূত্র থেকে জানা যায়,চলতি রবি মৌসুমে বিভিন্ন সারের মজুত রয়েছে(নভেম্বর/২১)ইউরিয়া ৮৫২ মেট্রিক টন,ডিএপি ৮২৮ মেট্রিক টন,পটাশ ৫৮৫ মেট্রিক টন । এছাড়াও আরো ৮শ’ মেট্রিক টন সারের চাহিদা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। আশা করেন অল্প সময়ের মধ্যে বরারদ্দ পাবেন বলে জানিয়েছেন।সারের মূল্য হিসেবে ডিএপি প্রতি বস্তা ৮শ’,পটাশ প্রতি বস্তা ৭শ’৫০ টাকা ও ইউরিয়া প্রতি বস্তা ৮শ’ টাকা।
 এদিকে ডিজেলের দাম চার দফায় ৪৪ টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৮০ টাকা হয়েছে।এতে উৎপাদন ব্যয় অস্বাভাবিক বেড়ে গিয়ে কৃষকদের মোটা অংকের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। তাছাড়া উৎপাদিত কৃষিপণ্য পেয়াজ,আলু,ধান,গম, ভুট্টা,পাটসহ অন্যান্য ফসলের ন্যায্য ম‚ল্য না পাওয়ায় কৃষকের উৎপাদন খরচও উঠছেনা। ফলে এ বছর গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ইরি-বোরো চাষাবাদ ব্যাহত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।
অপর দিকে অর্থনীতিবিদরা জানিয়েছেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে কৃষিতে। রবি মৌসুমের শুরুতেই হঠাৎখরচ বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন চাষিরা। ফসল উৎপাদন ব্যয় বাড়বে ৩০ শতাংশ। আর এতে কৃষি অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে মনে করছেন তারা।
উপজেলার মালেকাবাদ গ্রামের কৃষক তাজুল ইসলাম প্রধান হতাশা ব্যাক্ত করে বলেন,বর্তমানে আমন ধানের ম‚ল্য প্রতিমণ ৮শ’ থেকে হাজার টাকা অথচ সার-কীটনাশক, সেচ,শ্রমিক খরচ ও অন্যান্য সব খরচ মিলিয়ে প্রতিমণ ধানের উৎপাদন খরচ হয় প্রায় ৯শ’ থেকে ১হাজার টাকার ওপরে। তার চেয়ে ভাল কৃষিজমি পতিত রাখা।ম‚লত:সার, ডিজেল,বিদ্যুৎসহ আনুসঙ্গিক ব্যয় অস্বাবাভিক বৃদ্ধির কারনে লাভের বদলে ক্ষতির আশঙ্কায় এ অঞ্চলের কৃষকরা বোরো আবাদ কমিয়ে কিংবা বাদ দিয়ে গম,ভ‚ট্টাসহ অন্যান্য ফসলের দিকে ঝুকে পড়েছেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৈয়দ রেজা-ই-মাহমুদ জানান,ডিজেল,বিদ্যুৎসহ কৃষিপণ্যের দাম বৃদ্ধির ফলে কৃষকদের উৎপাদন ব্যয় কিছুটা বৃদ্ধি পেলেও বোরো উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষে উৎপাদন খরচ কমাতে কৃষকদের যথাযথ পরামর্শ দিতে কৃষি বিভাগের মাঠকর্মীরা সচেষ্ট রয়েছেন। আশাকরি সফলতা আসবে।

তাজাখবর২৪.কম: ঢাকা বুধবার, ১৭ নভেম্বর ২০২১ ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮,১৭ রবিউস সানি ১৪৪৩


এই বিভাগের আরো সংবাদ

advertisement

 
                              
                             প্রধান উপদেষ্টা: ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট
                                             সম্পাদক: কায়সার হাসান
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: আর কে ফারুকী নজরুল, সহকারি সম্পাদক: জহির হাসান,নগর সম্পাদক: তাজুল ইসলাম।
ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: মডার্ণ ম্যানশন (১৫ তলা) ৫৩ মতিঝিল বা/এ, ঢাকা-১০০০।
এই ঠিকানা থেকে সম্পাদক কায়সার হাসান কর্তৃক প্রকাশিত।
কপিরাইটর্স ২০১৩: taazakhobor24.com এর সকল স্বত্ব সংরক্ষিত।
ফোন: ০৮৮-০২-৫৭১৬০৭২০, মোবাইল: ০১৮১৮১২০৯০৮, ০১৯১০৭৭৪৫৫৯
ইমু: ০১৯১০৭৭৪৫৫৯ ই-মেইল: [email protected] , [email protected]
facebook: taaza khobor, You tube:Taaza khobor Tv

মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, 2০২3